Market Status: Closed
  Tuesday, 22 Sep '20
   00:56:00 (BST)

  • Press Release
  • Events
  • Publications
  • জাতীয় বাজেট ২০২০-২১ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন

    ১৭ জুন, ২০২০

    প্রিয় প্রিন্ট মিডিয়া এবং ইলেক্ট্রনিক সংবাদ মাধ্যমের সদস্যবৃন্দ আসসালামুয়ালাইকুম।

    জন্ম শত বার্ষিকীতে আমরা গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করছি জনগ্ণ অন্তঃপ্রান, আজীবন সংগ্রামী নেতা জাতির পিতা  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-কে, আমরা শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-কে। যিনি সাধারণ মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি এবং তাদের জীবন মানের উন্নয়ন সহ সকলের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে আলোকবর্তিকা নিয়ে জাতির পিতার দেখানো পথে দেশের মানুষের জন্য অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন। যিনি দেশে প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাবের শুরু থেকে তার সুযোগ্য নেতৃত্ব এবং সুচিন্তিত পরিকল্পনার মাধ্যমে দেশের সকল মানুষকে সাথে নিয়ে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন । মাননীয় প্রধান মন্ত্রীকে জানাই আন্তরিক ধন্যবাদ।

    আপনারা জানেন, মাননীয় অর্থমন্ত্রী জনাব আ হ ম মুস্তফা কামাল বিগত ১১ জুন মহান জাতীয় সংসদে আগামী ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করেছেন।

    বিশ্ব মহামারি কোভিড-১৯ নভেল করোনা ভাইরাসের এই ক্রান্তিকালে দাঁড়িয়ে দেশের অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভবিষ্যৎ পথ পরিক্রমা শিরোনামে যে বাজেট অর্থমন্ত্রী মহোদয় অত্যন্ত প্রজ্ঞা এবং সাহসের সাথে উপস্থাপন করেছেন তার জন্য চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ এর পক্ষ থেকে আমরা আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

    এই  বাজেট জনজীবন সুরক্ষা, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, শিল্প,ব্যবসাবানিজ্য ও অর্থনৈতিক চাকা সচল করবে বলে আমরা আশা করছি। সার্বিক পুঁজিবাজারের উন্নয়নে অনেক গুলো বিষয় গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হয়েছে এই বাজেটে। মাননীয়  প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্ব এবং সুদক্ষ পরিচালনায় কোভিড ১৯ এর ভয়াবহতা কাটিয়ে পুঁজিবাজারের উন্নয়ন গতিশীলতা বৃদ্ধি পাবে বলে আমরা আশা করছি।

    বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে রুপান্তর করার যে রূপকল্প সরকারের রয়েছে তাতে ব্যাপক ভাবে বেসরকারী পুঁজি সঞ্চালনের প্রয়োজন। আর এ লক্ষ্য পূরণের জন্য পুঁজিবাজার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে বলে আমরা দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করি । শুধুমাত্র ব্যাংক ঋণ নির্ভর বেসরকারী বিনিয়োগ এবং পুঁজি সঞ্চালন একদিকে যেমন ব্যাংক ব্যাবস্থার দূর্বলতা তৈরি করে অন্যদিকে পুঁজিবাজারের বিকাশেও প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে । এই প্রেক্ষিতে পুঁজিবাজারে টেকসই উন্নয়ন এবং গুণগত সম্প্রসারণের জন্য ব্যাপক কৌশল প্রণয়ন করা প্রয়োজন । এই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড অনেক গুলো প্রস্তাবনা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নিকট উপস্থাপন করে। । সিএসই এর প্রস্তাবনার বিষয়গুলো পুনর্বিবেচনার জন্য আপনাদের মাধ্যমে মাননীয় অর্থমন্ত্রীকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

    ১. আসন্ন ২০২০-২০২১ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটে তালিকাভুক্ত এবং অতালিকাভুক্ত কোম্পানির  মধ্যকার কর ব্যবধান বিদ্যমান ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে সাড়ে ৭ শতাংশ নির্ধারনের প্রস্তাব করা হয়েছে। এ ব্যাবধান কমানোর কারণে  ভবিষ্যতে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে কোম্পানিগুলো আরো নিরুৎসাহিত হবে বলে আমরা মনেকরছি। আমরা অতালিকাভুক্ত কোম্পানির পাশাপাশি তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার ২৫% থেকে কমিয়ে ২০% করার জন্য অনুরোধ করছি। এতে ভাল কোম্পানি সমূহ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হতে উৎসাহিত হবে। যা পুঁজিবাজারকে সমৃদ্ধ করবে এবং স্বচ্ছ কর্পোরেট রিপোর্টিং এর মাধ্যমে রাজস্ব আদায়ও বৃদ্ধি পাবে।

    ২. বাজেটে অর্থমন্ত্রী মহোদয় পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ দেয়ার কথা বলেছেন। এক্ষেত্রে ১০ শতাংশ কর পরিশোধ করে পুঁজি বাজারে তিন বছরের জন্য এ অর্থ বিনিয়োগ করা হলে আয়কর কর্তৃপক্ষ সহ সরকারের অন্য কোন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোন প্রশ্ন করবেনা । এ বছরের ১ জুলাই থেকে আগামী বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত ব্যাক্তিশ্রেণীর করদাতারা পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ পাবেন।

    ব্যক্তি শ্রেণীর করদাতা বিনিয়োগকারীদের জন্য এটি নিঃসন্দেহে একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ। তবে নূন্যতম তিন বছরের মধ্যে বিনিয়োগ প্রত্যাহার না করার শর্তটি তুলে দেয়ার জন্য আমরা মাননীয় অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করছি। যা ব্যক্তি শ্রেনীর করদাতাদেরকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে আরো  উৎসাহিত করবে।

    ৩. দেশের বন্ড মার্কেটকে শক্তিশালী করার জন্য ২০২০-২০২১ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটে বন্ডের সুদ ও বাট্টার ওপর উৎস কর এবং লেনদেন মূল্যের ওপর উৎস কর সমন্বয়ের প্রস্তাব করেছেন মাননীয় অর্থমন্ত্রী। যা পুঁজিবাজারে বন্ডের লেনদেন বাড়াবে বলে আমরা মনে করছি। দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নে একটি শক্তিশালী বন্ড মার্কেট বিকশিত হলে সরকারি ও বেসরকারি খাতের বড় প্রকল্পে অর্থায়নের নতুন ক্ষেত্র ও সুযোগ তৈরি হবে বলে আমরা আশা করছি।

    এর পরিপ্রেক্ষিতে বিনিয়োগকারীদের কাছে বন্ড মার্কেটকে আরো আকর্ষনীয় করার জন্য অর্থমন্ত্রী মহোদয় বন্ডের সুদ ও বাট্টা পরিশোধ করার সময় উৎসে কর কর্তনের বিধান রহিত করে সুদ ও বাট্টা পরিশোধ করার সময় উৎস কর কর্তনের প্রস্তাব করেছেন। তাছাড়া বন্ড লেনদেনের জন্য বর্তমান বিধান অনুসারে লেনদেন মূল্যের ওপর উৎসে কর কর্তনের পরিবর্তে লেনদেনর জন্য পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) নির্ধারিত কমিশনের ওপর উৎসে  কর কর্তনের প্রস্তাব করা হয়েছে। যা বন্ড মার্কেটের বিকাশ ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করবে বলে আমরা আশা করছি।

    ৪. আগামী অর্থবছরের বাজেটে অর্থমন্ত্রী মহোদয় ব্যাক্তিশ্রেণীর করদাতাদের জন্য ছাড় দেয়ার প্রস্তাব করেছেন। আবার কর আদায়ে বাড়তি কিছু উদ্যোগ ও নিয়েছেন। বাজেটে ব্যাক্তিশ্রেণীর করদাতাদের করমুক্ত আয়সীমা বৃদ্ধি করে ৩ লক্ষ টাকা করা হয়েছে। আবার করহারো কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। আগে সর্বনিম্ন কর হার ছিল ১০ শতাংশ। এবার কর হার ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছেন। তাছাড়া করহার ও পুনর্বিন্যাস এর প্রস্তাব করা হয়েছে, যা ব্যক্তিশ্রেণীর করদাতাদের পুঁজি বাজারে বিনিয়োগ আরো উতসাহিত করবে বলে আমরা মনে করি।

    এছাড়াও কোন করদাতা অনলাইনে বার্ষিক রিটার্ন জমা দিলে ২ হাজার টাকা কর ছাড় পাবেন । যা ওই করদাতা একবারই পাবেন। এতে করদাতারা ঘরে বসেই অনলাইন রিটার্ন দিতে উৎসাহিত হবেন।

    ৫. নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানি সমূহের আয় তিন বছর করমুক্ত রাখা হলে অতালিকাভুক্ত কোম্পানিসমূহ তালিকাভুক্ত হতে উৎসাহিত হবে । এতে পুঁজিবাজারে গুণগত মানসম্পন্ন শেয়ারের যোগান বাড়বে যা বাজারে লেনদেন বৃদ্ধি ও স্থিতিশীলতা আনয়নে ভূমিকা পালন করবে ।

    ৬. এডিবি ও বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে সম্পাদিত ঋণ চুক্তির হিসেবে প্রণীত ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন আইন দ্রুত বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমরা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছি। ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন প্রক্রিয়া বাস্তবায়নে সরকারও আমাদের সার্বিক সহযোগীতা প্রদান করে আসছে।

    বর্তমানে সিএসই ক্রমহ্রাসমান হারে আয়কর প্রদান করে, যা এই অর্থবছরে শেষ হবে । এক্সচেঞ্জ ডিমিঊচ্যুয়ালাইজেশন  আইন ২০১৩ এর বিধান অনুযায়ী মোট ইস্যুকৃত শেয়ারের শতকরা পঁচিশ ভাগ কৌশলগত বিনিয়োগকারীর নিকট বিক্রয় করতে হবে। সিএসই এখনো আইন অনুযায়ী কৌশলগত বিনিয়োগকারী নির্ধারণ করতে পারেনি । কৌশলগত বিনিয়োগকারীর নিকট শেয়ার বিক্রয়ের জন্য চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকে (সিএসই) পাঁচ বছরের জন্য কর অব্যহতির সুবিধা দেয়া হলে ডিমিঊচ্যুয়ালাইজেশন আইন অনুযায়ী কৌশলগত বিনিয়োগকারী পেতে সহায়ক হবে এবং একই সাথে তুলনামূলক ছোট এক্সচেঞ্জ হিসেবে দেশের পুঁজিবাজারে যথাযথ ভূমিকা পালনে সক্ষম হবে ।

    ৭.  স্টক ব্রোকারদের উৎসে কর কর্তনের হার পুনঃ নির্ধারনের জন্য বারংবার অনুরোধ সত্বেও

     এই হার পূর্ববর্তী ০.০৫% বহাল রাখা হয়েছে। অধিকানশ ব্রোকার হাউজ বর্তমানে লোকসানী প্রতিষ্ঠানে পরিবর্তিত হওয়া সত্বেও এসকল ব্রোকারেজ হাউজগুলো থেকে বর্ধমান হারে কর আদায় আয়করের মৌলিক নীতিরও পরিপন্থী বলে আমরা মনে করি। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে স্টক ব্রোকারদের উৎসে কর কর্তনের হার ২০০৬ সালে চালুকৃত হারে অর্থাৎ ০.০১৫% এ পুনঃনির্ধারনের্ব জোর দাবী জানাচ্ছি।

    ৮. প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বিনিয়োগ আগ্রহ সৃষ্টি করার লক্ষ্যে বর্তমানে মূলধনী লাভের উপর কর হার ১০% থেকে কমিয়ে ৭.৫০% নির্ধারণ করা। আমাদের প্রত্যাশা থাকবে প্রস্তাবিত বাজেট চূড়ান্তের প্রাক্কালে আমাদের বক্তব্যগুলো পুনঃবিবেচনা এবং অর্ন্তভুক্ত করা হবে।

    পরিশেষে সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সবাই ভাল থাকবেন এবং সুস্থ থাকবেন।

     

    আসিফ ইব্রাহিম

    চেয়ারম্যান

    ………………………………………………………………

     

     

     

     

     

     

     

     

     

     

    | June 17, 2020 |